ফ্রিল্যান্সিং কি || ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শুরু করব

ফ্রিল্যান্সিং কি || ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শুরু করব

ফ্রিল্যান্সিং কি || ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শুরু করব? ফ্রিল্যান্সিং ইন্ডাস্ট্রিতে কিভাবে কাজ করে? এবং কিভাবে আপনার দৈনন্দিন জীবনের শত ব্যস্ততার মাঝেও আপনি আপনার নিজের জন্য এ ফ্রিল্যান্সিং ইন্ডাস্ট্রিতে একটি সাসটেইনেবল ক্যারিয়ার গড়তে পারেন?

তাহলে চলুন ফ্রিল্যান্সিং নিয়ে এখন আমি আপনার সাথে কথা বলি একটু আগে বলা বিষয়গুলো আপনাকে ক্লিয়ার করে দেয়ার জন্য শুরুতেই আপনাকে বলব হোয়াট ইজ ফ্রিল্যান্সিং? ফ্রিল্যান্সিং আসলে জিনিসটা কি?

ফ্রিল্যান্সিং জব এর মতোই, আমরা যদি কোন কোম্পানিতে জব করতে চাই তাহলে আমরা কি করি। ওই কম্পানি সার্কুলার দিলে তখন আমরা জবের জন্য এপ্লাই করি, সি ভি সাবমিট করি এবং জবটি হয়ে গেলে সে কোম্পানিতে নির্দিষ্ট একটি দায়িত্ব পালন করতে থাকি এবং পার মান্থ স্যালারি জেনারেট হয় সে কাজের বিনিময় ফ্রিল্যান্সিং এ ধরনের একটি জব অনলাইনে বিভিন্ন কোম্পানি বিভিন্ন মানুষদেরকে হায়ার করে থাকে সে কোম্পানিগুলোর বিভিন্ন কাজ করে দেয়ার জন্য যেমনটা কোম্পানি লঞ্চ নতুন লোগো ডিজাইন দরকার তাই সে গ্রাফিক ডিজাইনারদের কে হায়ার করে করিয়ে নেয় । আবার একটা কোম্পানির ওয়েবসাইট এর প্রয়োজন । একজন ওয়েব ডেভেলপার কে হায়ার করে অনলাইনে সে কোম্পানি তাদের জন্য ওয়েবসাইট তৈরী করে নেয় ।আমি যেমন একজন ওয়েব ডেভেলপার ।আমি বিভিন্ন কোম্পানির জন্য ওয়েবসাইট তৈরী করে দেই এবং এটার মাধ্যমে ফ্রিল্যান্সিং করি অর্থাৎ আপনি অনলাইনে আপনার যে দক্ষতা বা স্কি্ল আছে যে বিষয়টা আপনি জানেন অথবা আপনি ভবিষ্যতে শিখে নিবেন সেই দক্ষতা দ্বারা আপনি বিভিন্ন কোম্পানিতে সহযোগিতা করবেন যার বিনিময় কোম্পানি আপনাকে পেমেন্ট করবে ।তবে সাধারণত আমরা যে জব গুলো দেখি সেই জব গুলোর সাথে ফ্রিল্যান্সিং জব এর একটা ডিফারেন্স আছে আমরা যদি আমাদের বাংলাদেশে কোন কোম্পানিতে জব করি তাহলে সেখানে fixed জব করি ।প্রতিদিন একটা নির্দিষ্ট টাইম ফিক্স করে।
মাস শেষে আমাদের কাছে আলাদা জেনারেট হয় কিন্তু ফ্রিল্যান্সাররা অনলাইনে ফিক্সট কোন কোম্পানির জন্য অফিস জব করে না ।একটা নির্দিষ্ট টাইম অনুযায়ী তারা পুরো মাস ধরে কাজ করে না তারা কন্ট্রাক বেসিস কাজ করে । অনেক কোম্পানির সাথে কাজ করে
এবং যার জন্য তারা প্রতি মাসে একাধিকবার পেমেন্ট পেয়ে থাকেন।যেমন ধরেন একজন ওয়েব ডেভেলপার ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারে সে এক মাসের দশটা কোম্পানির জন্য দশটা ওয়েবসাইট তৈরী করলো তাহলে সে দশবার কিন্তু পেমেন্ট পাবেন এবার যত টাকা ৫০ ডলার করে হলে ৫০০ ডলার ১০ ডলার করে হলে ১০০ ডলার।

ফ্রিল্যান্সিং কি || ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শুরু করব

এক্সাম্পল বললাম ঠিক একইভাবে একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনারের লোগো ডিজাইন করতে পারে সেও যদি এক মাসের দশটা কোম্পানির জন্য দশটা লোগো ডিজাইন করে দেয় তাহলে সে দশবার আর্নিং করতে পারবে কিন্তু সাধারন ভাবে আমরা যদি কোন কোম্পানিতে ফিক্স জব করি তাহলে পুরো মাস আসে আমরা মাত্র একবার আর্নিং করতে পারি ।যার জন্য ফ্রিল্যান্সারদের ইনকাম সাধারণ জব করার থেকে অনেকাংশে বেশি হয়ে থাকে আর payment গুলো ডলারে হয়ত আর্নিং এর পরিমাণ বেশি হয় ।আমি জব এর সাথে ফ্রিল্যান্সারদের কোন তুলনা করছি না । আপনাকে বোঝানোর জন্য আমি কয়েকটা সাধারন এক্সাম্পল দিলাম ।আপনি যদি অলরেডি কোন কাজ পেরে থাকেন যেমন আমি ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারি ,কম্পিউটার প্রোগ্রামিং পারি তাই এটির উপরে আমি ফ্রিল্যান্সিং করি । বিভিন্ন কোম্পানির ওয়েবসাইট তৈরি করে দিন আপনার কোম্পানীর জন্য একটা ওয়েবসাইট লাগবে আপনি আমাকে দিয়ে করে নিতে পারেন, এই যে অনলাইনে আপনি আমাকে দিয়ে আপনার কোম্পানীর জন্য একটি ওয়েবসাইট তৈরি করছেন এইটাই হচ্ছে ফ্রিল্যান্সিং ।আপনি ও ফ্রিল্যান্সার হতে চান তাহলে আপনার মধ্যে কোনটা আছে?

ফ্রিল্যান্সিং কি || ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শুরু করব

যদি কোন স্কেল না থাকে তাহলে যে কোন একটি বিষয়ে আপনি নিজেকে দক্ষ করে নিতে পারলেই সে বিষয়টা দাঁড়ায় আপনি ফ্রিল্যান্সিং করতে পারবেন। অনলাইনে বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে ফাইবার ,upwork ,ফ্রিল্যান্সর মার্কেটপ্লেস গুলোর মাধ্যমে বিভিন্ন কোম্পানির আপনার সহযোগিতা করতে পারবেন । যেমনঃ মাইক্রোসফট ওয়ার্ড পারেন , আপনি যদি মাইক্রোসফট এক্সেল পারেন এগুলো ছাড়াও আপনি ফ্রিল্যান্সিং করতে পারবেন যে কোন কাজ করা যায় ।ফ্রিল্যান্সাররা কন্ট্রাক্টর বেসিস কাজ করে থাকে তবে কাজ করেনা ,স্বাধীনতা আছে ফ্রিল্যান্সারদের মধ্যে । তারা চাইলেই মাসে ১০ জনকে জন্য কাজ করলো আবার চাইলে ২০ জনের জন্য কাজ করলো আবার চলে কারো জন্যই কাজ করল না একটা স্বাধীনতা আছে ফ্রিল্যান্সিং এর পাশাপাশি আবার কিছুটা ইনসিকিউরিটি আছে ।যদি আপনার কাছে কোন ক্লাইন্ত না থাকে আপনি যদি কোনো ক্লাইন্ত না পান তাহলে আপনার ইনকাম না হওয়ার চান্স আছে কিন্তু আপনি যদি কোন বিষয় খুব ভাল হবে স্কিল ডেভেলপ করে নিতে পারেন তাহলে বেকার বসে থাকার সম্ভাবনা খুবই কম ।

তাই ফ্রিল্যান্সিং করতে হলে যে কোন একটি বিষয়ে আপনাকে পারদর্শী হয়ে নিতে হবে । আপনি যেকোন মার্কেটপ্লেসের জয়েন করার মাধ্যমে বিভিন্ন কোম্পানি কে সহযোগিতা করার মাধ্যমে আপনি একটি ক্যারিয়ার ডেভলপ করতে পারেন তবে এটা তো গেল ফ্রিল্যান্সিং কিন্তু ফ্রিল্যান্সিং করা ছাড়াও আরও বিভিন্ন উপায়ে আমি ক্যারিয়ার ডেভলপ করতে পারেন যার মধ্যে ইউটিউবিং হচ্ছে একটা । ইউটিউব চ্যানেল শুরু করে সেখানে বিভিন্ন বিষয়ের উপর আপনি ভিডিও তৈরি করতে পারেন এবং একটি ইউটিউব চ্যানেল থেকে আপনি বিভিন্নভাবে আপনার জন্য ক্যারিয়ার ডেভলপ করতে পারেন এটার উপর আমি সম্পূর্ণ একটি ব্লগ পাবলিশ করেছে ব্লগে আপনি সেই ব্লগ দেখে নিয়েন ইউটিউবিং এর পাশাপাশি আরেকটি উপায় হচ্ছে blogging আপনার একটি ওয়েবসাইটে আপনি যে বিষয়গুলো পারেন বা যে বিষয়গুলো আপনার জানা আছে সে বিষয়গুলোর উপর লেখালেখি করবেন ।একটা ওয়েবসাইটে blogging করার মাধ্যমে বিভিন্নভাবে ক্যারিয়ার ডেভলপ করা যায় যেটার উপরে একটি ব্লগ পাবলিশ করে দিয়েছি অলরেডি ।

ফ্রিল্যান্সিং কি || ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শুরু করব

ফ্রিল্যান্সিং ছাড়া অনলাইনে ক্যারিয়ার বিল করার আরেকটি জনপ্রিয় উপায় হচ্ছে অনলাইনে বিভিন্ন ধরনের প্রোডাক্ট সেল করা যেটাকে ই-কমার্স বিজনেস বলা হয় এর উপরে একবার শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত আমি কমপ্লিট করে পাবলিশ করে দিয়েছে এত সাইটে ।

freelancing bangla

অর্থাৎ ইউটিউবিং বা ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ব্লগিং করা বা ই-কমার্স করা এগুলোতে আপনি আসলে কোন ফ্রিল্যান্সিং করবেন না বরং আপনার নিজের একটা কোম্পানি আপনি শুরু করবেন আপনার ইউটিউব চ্যানেল শুরু করা মানে এখানে আপনি কারও জন্য কাজ করবেন না আপনার নিজের জন্য কাজ করবেন যেমন ধরুন আমি মন চাইলো একটা ভিডিও আপলোড দিলাম মন চাইলনা ভিডিও আপলোড দিলাম না কোন ক্লায়েন্টের জন্য কাজ করতে হচ্ছে না ।ওয়েবসাইটে আপনার যখন ইচ্ছা তখন আপনার ফ্রি টাইম আছে আপনি বিভিন্ন বিষয় নিয়ে লেখালেখি করতে পারেন ।ঐখানেও আপনাকে কোন ক্লায়েন্টদের জন্য কাজ করতে হবে না আপনি সম্পূর্ণ স্বাধীনভাবে যখন মন চায় কনটেন্ট পাবলিশ করবেন যখন মজা করবেন না।

ই-কমার্স বিজনেস ও একি আপনি যতটুকু কাজ করবেন ততটুকুই ফিডব্যাক পাবেন অনলাইনে বিভিন্ন ওই আছে ক্যারিয়ার ডেভলপ করার । ফ্রিল্যান্সার হয়ে বিভিন্ন কোম্পানি কে সহযোগিতা করতে পারেন ।তাদের বিজনেসকে আরো গ্রো করতে অথবা আপনি নিজে একটা ইউটিউব চ্যানেল নিজে একটা ওয়েবসাইট লঞ্চ করে বা একটা ই-কমার্স বিজনেস শুরু করে আপনি একটা ক্যারিয়ার ডেভলপ করতে পারেন যার কাছে যেটা ভালো লাগে আমি ফ্রিল্যান্সিংয়ের করছি ইউটিউবে করছি আবার ব্লগিং করছি আমার একটা ফ্রেন্ড আছে ওদের কে নিয়ে আমি কাজ করছি আপনার যেটা ভালো লাগে সেটা নিয়ে করবেন ।ফ্রিল্যান্সিং এর পাশাপাশি অন্যান্য উপায়গুলো বলে দিলাম যেন আপনি ডিসাইড করতে পারেন যে আপনার জন্য কোনটা বেস্ট হয় ।

এখন আপনাকে বলব আপনি কিভাবে একজন ফ্রিল্যান্সার হয়ে উঠতে পারেন একজন ফ্রিল্যান্সার হয়ে ওঠার জন্য সবার প্রথমে যে বিষয়টি আপনাকে লক্ষ্য করতে হবে সেটা হচ্ছে যে কোন একটি বিষয়ের উপর নিজেকে দক্ষ করে তুলতে হবে।

যেমন ধরুন আমি ওয়েব ডেভলপার কম্পিউটার প্রোগ্রামিং করি এবং এই বিষয়ে আমি নিজেকে দক্ষ করে তুলেছি আবার ইউটিউবে ভিডিও তৈরি করার জন্য ভিডিও এডিটিং তারপর যত কিছু লাগে ভিডিও তৈরি করার জন্য এই বিষয়গুলো আমি শিখে নিয়েছি আবার ব্লগিং করি আমি লেখালেখি করতে পারি এখন অনলাইনে এতো এতো অপরচুনিটি এত ক্যাটাগরি সাবজেক্ট আছে যে আপনি চাইলে সবগুলো বিষয় নিয়ে কাজ করতে পারবে না শুরুতে যেকোনো একটি টপিক নিদ্ধারন করুন একটি সাবজেক্ট নিদ্ধারন করুন এবং সেইটাই সম্পূর্ণ মনোযোগ দিয়ে শিখতে শুরু করুন ।এটা করার জন্য অনলাইনে যে ফ্রীল্যান্স মার্কেটপ্লেস গুলোতে ফাইবার ,upwork, ফ্রিল্যান্সর মার্কেটপ্লেসগুলোতে ভিজিট করুন তাদের জব ক্যাটাগরিগুলো দেখুন, কত ধরনের জব সেখানে পাওয়া যাচ্ছে ।সে বিষয়গুলো একটু মনোযোগ দিয়ে লক্ষ্য করুন এবং নিজেকে জিজ্ঞেস করুন যে কোন বিষয়টা আপনার জন্য বেস্ট হতে পারে কোন বিষয়টা আপনার সবচেয়ে ভালো লাগে ।যে বিষয়টা আপনার সবচেয়ে বেশি ভালো লাগবে আপনের সেটাই করবেন ফ্রিল্যান্সিং শুরু করার জন্য এবং সে মনোযোগ দিয়ে শিখতে শুরু করো এখানে একটা প্রশ্ন আছে !

ফ্রিল্যান্সিং কোর্স

কোথায় ভর্তি হতে পারি ?আমি আমার এক্সপ্রেস থেকে যেটা দেখেছি যারা অনলাইনে খুব ভালো সাকসেসফুল কাজ করছে তারা বিভিন্ন ওয়েবসাইটে আর্টিকেল পড়ে পড়ে শিখে ইউটিউবে ভিডিও দেখে দেখে শিখে এছাড়াও অনলাইনে বিভিন্ন কোর্স পাওয়া যায় যেকোনো বিষয়ের উপরে কোর্স আছে যদিও বেশির ভাগই সব ইংরেজিতে এছাড়াও বাংলাদেশে এখন বিভিন্ন বিষয়ের উপরে অনলাইন কোর্স তৈরি করছে আপনি সেখান থেকে শিখে নিতে পারেন এছাড়াও পাশাপাশি আপনি যদি আপনার আশেপাশে ভালো কোন কোচিং সেন্টারের সন্ধান পাননি সেখান থেকে শিখে নিতে পারেন ।মূল বিষয়টা হচ্ছে আপনি যে বিষয়টা নিদ্ধারন করবেন সেই বিষয়টা কত দ্রুত আপনি কত ভালোভাবে শিখিয়ে নিতে পারেন ।

অনলাইন শপিং ব্যবসা কি ভাবে শুরু করা যায় ।

visit our other site  google seo

Leave a Comment